Menu

বগুড়ায় অপহৃত কালেজছাত্র উদ্ধার, গ্রেফতার ৩

স্টাফ রিপোর্টার, বগুড়া:
বগুড়ায় মুক্তিপণের দাবীতে অপহৃত কলেজছাত্রকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। সেই সঙ্গে গ্রেফতার করেছে অপহরণ চক্রের তিন সদস্যকে। অপহরণকারীদের কবল থেকে উদ্ধারকৃত সাকিবুল ইসলাম বগুড়ার একটি বেসরকারী পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের ছাত্র।

পুলিশ সুত্র জানায়, বগুড়া শহরের শেরপুর রোডে বাংলাদেশ ইনষ্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজী (বিআইআইটি) নামে বেসরকারি পলিটেকনিক এর ছাত্র সাকিবুল শনিবার দুপুরে পরীক্ষা শেষে রিক্সা যোগে শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়ামে যাচ্ছিল খেলা দেখার উদ্দেশ্যে। শহরের খান্দার এলাকায় অপহরণকারী চক্রের সদস্যরা সাকিবুলকে চাকু দেখিয়ে অপহরণ করে। এরপর মোবাইল ফোনে তার বাবার কাছে এক লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। পরে সাকিবুলের বাবা বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার দামরুল গ্রামের রফিকুল ইসলাম ছেলেকে সুস্থ অবস্থায় ফিরে পেতে অপহরণকারীদেরকে বিকাশের মাধ্যমে ৫ হাজার টাকা দেয়। কিন্তু অপহরণকারীরা সাকিবুলকে ফেরত না দিয়ে আরো টাকা দাবী করে এবং টাকা না পেলে ছেলেকে হত্যা করা হবে বলে জানায়।

শনিবার রাতে রফিকুল ইসলাম বিষয়টি বগুড়া সদর থানায় জানালে পুলিশ মোবাইল ফোনের সুত্র ধরে অপহরণকারীদের অবস্থান সনাক্ত করে। কিন্তু অপহরণকারীরা বার বার সাকিবুলকে নিয়ে তাদের অবস্থান পরিবর্তন করতে থাকে। একপর্যায়ে শনিবার গভীর রাতে শহরের খান্দার এলাকার একটি বাড়ি থেকে অপহৃত সাকিবুল ইসলামকে উদ্ধার করা হয়। সেইসঙ্গে অপহরণের ঘটনায় জড়িত খান্দার চাপড়পাড়ার আবুল কালামের ছেলে রেজাউল ইসলাম ওরফে রিয়াদ (২৪), মালগ্রাম দক্ষিণপাড়ার ওয়াদুদ সরকারের ছেলে ওয়াহেদ ফারুকী ওরফে মেঘ (১৯) ও মালগ্রাম চাপড়পাড়ার ইদ্রিস আলীর ছেলে মোহাম্মদ সাজিবকে (২৫) গ্রেফতার করে পুলিশ।

অপহৃত সাকিবুল উদ্ধারের কাজে নেতৃত্বদানকারী পুলিশ কর্মকর্তা সদর থানার উপ-পরিদর্শক ( এসআই) সোহেল রানা জানান, পুলিশ অপহরণকারীদের অবস্থান সনাক্ত করার পরে তারা সাকিবুলকে নিয়ে একটি জঙ্গলে অবস্থান নেয়। এরপর বিকাশে টাকা দেয়ার আশ^াস পেলে অপহরণকারীরা তাকে একটি বাড়িতে নিয়ে যায় এবং অপর এক অপহরণকারী বিকাশে টাকা নিতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়ে।

রোববার দুপুরে বগুড়া সদর থানায় এব্যাপারে এক প্রেস ব্রিফিংএ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদিউজ্জামান বলেন, গ্রেফতারকৃতরা সংঘবদ্ধ অপহরণকারী চক্রের সদস্য। গ্রাম থেকে শহরে লেখাপড়া করতে আসা ছাত্র-ছাত্রীদেরকে তারা টার্গেট করে অপহরণের পর মুক্তিপণ আদায় করে থাকে। এর আগে তারা একাধিক অপহরণের সাথে জড়িত ছিল। তাদেরকে এর আগেও গ্রেফতার করা হয়েছিল। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে থানায় অপহরণ মামলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন।

No comments

Leave a Reply

seven + 8 =

সম্পাদকীয়

    উপ-সস্পাদকীয়

    সংবাদ আর্কাইভ

    সংবাদ